১০০ শয্যার হাসপাতালটিকে ২৫০ শয্যায় উন্নীত করার জন্য নতুন একটি ভবন দরকার। সে অনুযায়ী, ছয়তলা ভবন নির্মাণের কার্যাদেশ দেওয়া হয়। কিন্তু সাড়ে তিন বছরেও নির্মাণকাজ শেষ হয়নি। এদিকে করোনায় আক্রান্ত রোগীসহ হাসপাতালে আসা সাধারণ রোগীদের সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে চিকিৎসক, নার্স ও কর্তৃপক্ষ। নতুন ভবনের অভাবে করোনা রোগীদের জন্য সেন্ট্রাল অক্সিজেন সরবরাহব্যবস্থাও চালু করা যাচ্ছে না।

নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালের নতুন ভবনটি না হওয়ার জন্য ঠিকাদার মীর আমিরুল ইসলামকে দুষছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। আমিরুল নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ এবং নাটোর-২ (সদর ও নলডাঙ্গা) আসনের সাংসদ শফিকুল ইসলামের দুলাভাই। মূলত মীর হাবিবুল আলম এবং মাহবুব ব্রাদার্স প্রাইভেট লিমিটেড যৌথভাবে হাসপাতাল ভবন নির্মাণের কাজটি পেয়েছে। তাদের হয়ে কাজটি করছেন আমিরুল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *